মেয়ের সেলফোনে যত্নে আছেন দিতি-সোহেল

‘আমার ফোনের পাসওয়ার্ড ভুলে গিয়েছিলাম। যার জন‌্য ফোনের সব ডাটা মুছতে হয়েছিল। ব‌্যাকআপ ফাইল থেকে মায়ের এসব ছবি উদ্ধার করেছি। আমার মা।’—তিনটি ছবি ফেসবুকে পোস্ট করে এসব কথা লিখেছেন প্রয়াত তারকা দম্পতি দিতি-সোহেল চৌধুরীর কন‌্যা লামিয়া চৌধুরী।

পোস্ট করা একটি ছবিতে দেখা যায়, ব'ন্দুক হাতে অ‌্যাকশন লুকে ক‌্যামেরাব'ন্দি হয়েছেন দিতি। অন‌্য একটি ছবিতে কাবিলার সঙ্গে অ‌্যাকশন দৃশ‌্যের শুটিং করছেন তিনি। তৃতীয় ছবিতে ফ্রেমব'ন্দি হয়েছেন দিতি ও সোহেল চৌধুরী।

এতে দারুণ রোমান্টিক লুকে ধ’রা দিয়েছেন তারা। এটি দিতি-সোহেল চৌধুরী অ'ভিনীত কোনো একটি সিনেমার দৃশ‌্য। এসব ছবি অনেক আগের হলেও নিজের মুঠোফোনে এখনো যত্নে রেখেছেন লামিয়া।

এদিকে নেটিজেনদের অনেকে এসব ছবিতে মন্তব‌্য করেছেন। অনিলা চৌধুরী লিখেছেন, ‘প্রতিটি স্টেজে যোদ্ধা ছিলেন তিনি।’ রুবেল নামে একজন লিখেছেন, ‘গতকাল রাতে আমি দিতি ম্যাডামের ছবি দেখেছি অনেক সময়। যেখানেই থাকুন ভালো থাকুন।’ আরো ছবি পোস্ট করার অনুরোধ জানিয়ে মিনহাজুর রহমান নয়ন লিখেছেন, ‘অ‌্যালবামের সব ছবি আপলোড দিয়েন।’

১৯৮৪ সালে নতুন মুখের সন্ধানের মাধ্যমে ঢাকাই চলচ্চিত্রে পা রাখেন দিতি। তার অ'ভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র উদয়ন চৌধুরী পরিচালিত ‘ডাক দিয়ে যাই’। কিন্তু শেষ পর্যন্ত এটি মুক্তি পায়নি। তার মুক্তিপ্রা'প্ত প্রথম সিনেমা ‘আমিই ওস্তাদ’।

১৯৮৬ সালে জনপ্রিয় চিত্রনায়ক সোহেল চৌধুরীর সঙ্গে ঘর বাঁধেন দিতি। এ সংসার আলো করে জন্ম নেয় লামিয়া ও দী'প্ত । কিন্তু নব্বই দশকের মাঝামাঝি সময়ে এ তারকা দম্পতির বিচ্ছেদ ঘটে। তারপর দিতির কাছে বড় হয়েছে লামিয়া ও দী'প্ত । ২০১৬ সালের ২০ মার্চ মা'রা যান জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রা'প্ত অ'ভিনেত্রী দিতি।

অন‌্যদিকে ১৯৯৮ সালের ১৮ ডিসেম্বর রাজধানীর বনানীর ১৭ নম্বর রোডের আবেদীন টাওয়ারে ট্রাম্পস ক্লাবের নিচে সোহেল চৌধুরীকে গু'লি করে হ'ত্যা করা হয়।