নিজ হাতে ট্রাক থেকে ত্রাণসামগ্রী নামিয়ে অসহায় মানুষকে দিলেন ইউএনও

ঢাকা থেকে এসেছে ত্রাণ। উপজেলায় করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ ও অসহায়দের দেওয়া হবে এই ত্রাণসামগ্রী। সেচ্ছাসেবীরা ট্রাকভর্তি ত্রাণের বস্তাগুলো নামাচ্ছেন। তবে ক্লান্তি লেগে এসেছে অনেকের। চাই একটু বিশ্রাম।

বিষয়টি বুঝতে পারেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা। ছুটে আসেন সেখানে। এসেই নিজেই হাতে নেন দুটি বস্তা। দেখে সবাই অবাক। একটা দুটো বস্তা নয় ট্রাক থেকে ৩০০ বস্তা ত্রাণসামগ্রী নামিয়েছেন তিনি। পুরো কার্যক্রমে সদস্যদের দিয়েছেন দিক নির্দেশনাও। তাকে দেখে উৎসাহিত হয়ে তার সঙ্গে সঙ্গ দেন স্বেচ্ছাসেবীরা।

এমন ঘটনা ঘটেছে পঞ্চগড়ে দেবীগঞ্জ উপজেলায়। সেখানে হত দরিদ্র মানুষদের জন্য ত্রাণ সহায়তা নিয়ে যায় কালের কণ্ঠ শুভসংঘ। আর শুভসংঘের বন্ধুদের সঙ্গে ত্রাণসামগ্রী নামানো থেকে শুরু করে দেওয়া পর্যন্ত কাজ করেন ইউএনও প্রত্যয় হাসান।

স্বেচ্ছাসেবীরা জানান, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মানেই সুট-বুট পড়া কেউ একজন। যিনি ভাবগম্ভীর্য নিয়ে করবেন কাজ বা করাবেন। এমনটাই স্বাভাবিক। যখন দেখা যায়, ইউএনও নিজ হাতে ট্রাক থেকে নামাচ্ছেন ত্রাণের বস্তা তখন অবাক হয় সবাই। আরো ভালো লাগে যখন বোঝা যায় তিনি মন থেকেই কাজটি করছেন তার উপজেলার মানুষের জন্য। এমনই অবাক হয়েছেন পঞ্চগড়ে দেবীগঞ্জ উপজেলার মানুষ।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) পঞ্চগড়ের বোদা ও দেবীগঞ্জ উপজেলায় কালের কণ্ঠ শুভসংঘের তত্ত্বাবধানে বসুন্ধরা গ্রুপের ত্রাণ সহায়তা বিতরণে ইউএনওকে সহযোগিতা করতে দেখা যায়।

তার এমন কর্মকাণ্ডকে ইতিবাচক মনে করছেন দেবীগঞ্জ উপজেলার স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ও জনসাধারণ। এছাড়া ধন্যবাদ জানিয়েছেন শুভসংঘের সদস্যরা।

দেবীগঞ্জ সরকারি কলেজের এক শিক্ষক বলেন, ‘ইউএনওরাও এমন হয়! অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে সেচ্ছাসেবীদের সঙ্গে নিজ হাতে গাড়ির বস্তা টেনেছেন তিনি যা এর আগে আমরা কখনও দেখিনি। তার এমন ইতিবাচক মানসিকতা আমাদের স্বস্তি দেয়। দেশের সব ইউএনওরা যদি এমন হতেন।’

ইউএনও প্রত্যয় হাসান বলেন, ‘করোনাভাইরাস মহামারির মধ্যে আমাদের সবার শারিরীক পরিশ্রম করা উচিত। আমরা অনেকে চাইলেই ব্যায়াম করতে পারি না। তাই শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে শারীরিক পরিশ্রমের বিকল্প নেই। তাছাড়া সেচ্ছাসেবী তরুণদের সঙ্গে হাত হাত রেখে কাজ করলে মনে প্রশান্তি পাওয়া যায়।’

বসুন্ধরা গ্রুপের ত্রাণ সহায়তা প্রসঙ্গে ইউএনও বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপের প্রতি আমরা দেবীগঞ্জবাসী কৃতজ্ঞ। শুধু দেবীগঞ্জ নয় পঞ্চগড়ের প্রতিটি উপজেলায় তিন হাজার ত্রাণ সহায়তা দিচ্ছে বসুন্ধরা গ্রুপ। অসহায় নিম্নশ্রেণির মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সংশ্লিষ্ট সবাইকে ধন্যবাদ জানাই। বসুন্ধরা গ্রুপ ভবিষ্যতেও তাদের এই মানবিক কার্যক্রম অব্যাহত রাখবে সেই প্রত্যাশা করি।