৫ টি গরু দিয়ে শুরু খামারে এখন দুই কোটি টাকা দামের ৯৬টি গরু

দিনাজপুরের হিলির সাতনি চারমাথা বাজারে উন্নত জাতের গরুর খামা'র দিয়ে স্বাবলম্বী হয়েছেন মাহফুজার রহমান বাবু। পাঁচটি বিদেশি গরু দিয়ে খামা'র শুরু করেন, এখন খামা'রে ৯৬ টি গরু রয়েছে তার।

খামা'রে সব চেয়ে বড় আকারের পাঁচটি গরু আছে যা ৭ থেকে ৮ লাখ টাকায় 'বিক্রি করতে পারবেন বলে আশা করছেন খামা'র ব্যবসায়ী বাবু। খামা'র ঘুরে দেখা গেছে, ফিজিয়াম ও শ'ঙ্কর জাতের ৬০ টি গাভি ও ৩৬ টি বাচুরসহ আড়া গরু রয়েছে। উন্নতমানের শেটে রেখে গরুগু'লোকে লালন-পালন করা হচ্ছে।

প্রতিটি গরুর মাথার উপর ফ্যা'ন রয়েছে। পানি নিংস্কাশনের সুব্যবস্থা আছে। মলমুত্র সহজেই পরিস্কার করা হয়। প্রতিদিন খামা'রে ৮ হাজার টাকার ভুষি, ফিট ১ হাজার, ভুট্টা ২ হাজার ও ৫ হাজার টাকার ঘাস মোট ১৬ হাজার টাকার খাদ্যের প্রয়োজন হয় এই খামা'রে। খামা'র পরিচার্য করা জন্য ৮ জন শ্রমিক রয়েছে। দিনে ৫ জন ও রাতে ৩ জন শ্রমিক। ঘাস কা'টার মেশিন রয়েছে, তা দিয়ে সহজে ঘাস ও খড় কা'টা হয়। একজন পশু ডাক্তার আছেন।

তিনি প্রতিদিন একবার এসে গরুগু'লোকে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে যান। বর্তমান খামা'রে গরুর কোন রোগ-বালাই নেই, প্রতিটি গরু সুস্থ্য রয়েছে। েপ্রতিদিন এক একটি গাভি ১০ থেকে ১২ লিটার দুধ দিয়ে থাকে।

তা থেকে প্রায় ৫ মণ দুধ সংগ্রহ হয়। পার্শ্ববর্তী বিরামপুরে ব্র্যাক অফিসে ৩৫ থেকে ৪০ টাকা দরে এই দুধ 'বিক্রয় হয়। খামা'রের গরু থেকে যে গবর পাওয়া যায়, সেই গবরগু'লো ট্রাক্টর বোঝায় ১৫০০ টাকা ও পাওয়ার টিলা বোঝায় ৫০০ টাকা করে 'বিক্রি হয়। খামা'র শ্রমিক আব্দুর রহিম বলেন, আমর'া এই খামা'রে আট' জন শ্রমিক রয়েছি। দিনে পাঁচ জন ও রাতে তিন জন খামা'র পরিচার্য করি। দিনে আমর'া যারা কাজ করি তারা মাসে ৫ থেকে ৬ হাজার টাকা বেতন পাই। আর রাতে অনেকেই ৭ থেকে ৮ হাজার টাকা মাসিক বেতন পেয়ে থাকি। খামা'রে নিয়োজিত ডাক্তার শ্রী দুলাল চন্দ্র সরকার বলেন, এই খামা'রের আমি নিয়মিত ডাক্তার।

প্রতিদিন একবার করে খামা'রে এসে গরুগু'লো দেখা-শুনা করে যায়। যদি প্রয়োজন হয় তাহলে ঔষুধ দিয়ে যায়। বর্তমান খামা'রের সব গু'রু ভাল আছে। কোন রোগ-বালাই নেই। খামা'র মালিক মাহফুজার রহমান বাবু জানান, লাভ বা ব্যবসায়ী হিসেবে আমি এই খামা'র তৈরি করেছি। আট' বছর আগে প্রথমে ৫টি উন্নত জাতে বিদেশি গরু দিয়ে এই খামা'র শুরু করি। পরে আস্তে আস্তে আরও গু'রু আম'দানি করি। বর্তমান আমা'র খামা'রে ৯৬টি গরু রয়েছে।

আরও বেশি ছিলো সেগু'লো 'বিক্রি করা হয়েছে। প্রতিটি গাভি বছরে একবার করে বাচ্চা দিয়ে থাকে। খামা'রে প্রতিদিন মোট ব্যয় হয় প্রায় ১৮ হাজার টাকা এবং দুধ ও গবর থেকে আয় প্রায় ১২ হাজার টাকা। তিনি আরও জানান, খামা'র ব্যবসা করে আমি নিজেকে স্বাবলম্বী করে তুলেছি। প্রতি বছর কোরবানি ঈদে ভাল দামে গরু 'বিক্রি করে আসছি।

এলাকার অনেক বেকার যুবক আমা'র খামা'র দেখে খামা'র তৈরিতে আগ্রহ হচ্ছে এবং খামা'র সম্পর্কে জানতে চায়। অনেকেই আবার দুই চারটা করে দেশি-বিদেশি গরু কিনে বাড়িতে খামা'র তৈরি করছে। আমা'র খামা'রে বর্তমান প্রায় ২ কোটি টাকার গরু রয়েছে। এবি'ষয়ে হাকিমপুর উপজে’লা পশু সম্পদ কর্মক'র্তা ডা: আব্দুস সামা'দ জানান,

হিলি সাতনি চারমাথা বাজারে মাহফুজার রহমান বাবুর গরুর খামা'রটি এলাকার একটি আলোচিত খামা'র। এখানে প্রায় সবগু'লো গরুই উন্নত জাতের। আমর'া প্রতিনিয়ত পশু হাসপাতাল থেকে তার খামা'রকে সহযোগীতা করে আসছি। নিয়মিত টিকা প্রদান এবং ভিটামিন জাতীয় ঔষুধ দিয়ে আসছি। পশুসম্পদ বিভাগ থেকে এই খামা'র সকল সুবিধা দিয়ে যাচ্ছি। আশা করছি হিলির এই খামা'রটিকে একটি মডেল খামা'র করে দেশের কাছে তুলে ধরবো।