লকডাউন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপনে নতুন যে ৩ বিধি-নিষেধ যুক্ত হলো

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে চলমান লকডাউন ৫ মে পর্যন্ত ছিল। পরে এ লকডাউন আরও ১১ দিন বাড়িয়ে আগামী ১৬ মে পর্যন্ত করা হয়েছে। সরকারের এ সি'দ্ধান্ত জানিয়ে আজ বুধবার (৫ মে) প্রজ্ঞাপন জারি করে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ। প্রজ্ঞাপন বলা হয়েছে, বৃহস্পতিবার (৬ মে) থেকে জে’লার মধ্যে গণপরিবহন চলবে। তবে বন্ধ থাকবে আন্তঃজে’লা বাস। ট্রেন ও লঞ্চ বন্ধ থাকবে।

প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, আগের মতোই লকডাউনে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দোকান ও শপিংমল সকাল ১০টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। তবে মা'র্কেট শপিংমলে স্বাস্থ্যবিধি না মানলে বন্ধ করে দেওয়া হবে। এছাড়া খোলা থাকবে শিল্প-কারখানা।

এছাড়া জরুরি সেবা দেয়া প্রতিষ্ঠান ছাড়া যথারীতি সরকারি-বেসরকারি অফিস বন্ধ থাকবে। সীমিত পরিসরে ব্যাংকে লেনদেন করা যাব'ে সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত। বিধি-নিষে'ধ মানানোর জন্য নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট দ্বারা অ'ভিযান পরিচালনা করা হবে।

আগের বিধি-নিষে'ধের সঙ্গে নতুন কয়েকটি নিয়ম যুক্ত হয়েছে সেগু'লো হলো-

১. সরকার নির্ধারিত ঈদের ছুটির ৩ দিনের বেশি নয়।
২. সরকারি কর্মক'র্তা-কর্মচারীদের নিজ নিজ কর্মস্থলে থাকতে হবে।
৩. গণপরিবহন চলবে, তবে এক জে’লার বাইরে অন্য জে’লায় যেতে পারবে না।

এর আগে সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভা বৈঠক শেষে এক ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকেদের মন্ত্রিপরিষদসচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, স্বাস্থ্যবিধি মেনে শর্তসা'পেক্ষে আগামী ৬ মে থেকে জে’লার ভেতরে গণপরিবহন চলবে। তবে গণপরিবহন জে’লার ভেতরে চলাচল করতে পারবে। আন্তজে’লা চলাচল করবে না।

তিনি বলেন, মালিক সমিতি আমা'দের কথা দিয়েছে, কোনোভাবে গণপরিবহনে স্বাস্থ্যবিধি ভঙ্গ করা হবে না। তাহলে বন্ধ করে দেওয়া হবে। এটা আমর'া দেখব। লঞ্চ এবং ট্রেন বন্ধ থাকবে। যেহেতু ওগু'লো এক জে’লা থেকে আরেক জে’লায় যায়। সুতরাং বন্ধ থাকবে।