চলন্ত ট্রেনে সন্তান প্রসব, ফুটফুটটে সেই শিশুর নাম রাখা হলো মিতালী

দিনাজপুরে চলন্ত ট্রেনে এক প্রসুতি মা কন্যা সন্তানের জন্ম দিয়েছেন। ট্রেনের নামে নবজাতক কন্যা সন্তানের নাম রাখা হয়েছে মিতালী। সন্তান জন্ম দেওয়া মুক্তি পারভীন (২৫) কে দিনাজপুর ২৫০ শয্যা বিশি'ষ্ট জেনারেল হাসা'পাতালের গাইনী ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে।

নতুন অতিথির আগমনের জন্য আন্তঃনগর দ্রুতযান ট্রেন নির্ধারিত সময়ের ১৩ মিনিট পর দিনাজপুর 'ষ্টেশন ছেড়ে গেছে। মুক্তি পারভীন ও তাঁর সন্তনকে বিনা ভাড়ায় হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্সে পৌঁছে দিয়েছে দিনাজপুর রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ।

হাসপাতালের পক্ষ থেকে মুক্তি পারভীন ও নবজাতক মিতালীকে একগু'চ্ছ ফুল, ডালাভর্তি ফল, বিনা মূল্যে প্রয়োজনীয় ওষুধ ও নতুন জামাকাপড় উপহার দেয়া হয়েছে। মুক্তি পারভীন ঠাকুরগাঁও জে’লার পীরগঞ্জ উপজে’লার ভুমর'াদহ হাজী পাড়া গ্রামের মনসুর আলীর স্ত্রী।

রবিবার (৪ এপ্রিল) সকালে ঠাকুরগাঁও জে’লার পীরগঞ্জ 'ষ্টেশন থেকে দিনাজপুরে যাওয়ার সময় আন্তঃনগর ট্রেন দ্রুতযান এক্সপ্রেসে এই ঘটনা ঘটে।

মুক্তি পারভীনের স্বামী মনসুর আলী বলেন, এটা তাদের দ্বিতীয় সন্তান। তাদের একটি ২ বছর বয়সের কন্যা সন্তান রয়েছে। তিনি সন্তান সম্ভবা স্ত্রীকে নিয়ে দিনাজপুরে সেন্ট ভিনসেন্ট (মিশন হাসা'পতালে) হাসপাতালে চিকিৎসা করাতেন।

আগামী ৮ এপ্রিল সন্তান প্রসবের সম্ভাব্য তারিখ ছিল। তাই রবিবার সকালে স্ত্রীকে নিয়ে ডাক্তার দেখানোর উদ্দ্যেশে ঠাকুরগাঁও পীরগঞ্জ 'ষ্টেশনে পঞ্চগড় থেকে ঢাকা গামী দ্রুতযান এক্সপ্রেসের শোভন ৭৫৮ নং ট্রেনের ঙ বগিতে করে দিনাজপুরে আসছিলেন। পথে প্রসব ব্যথা শুরু হয়। এ সময় ট্রেনে থাকা মহিলা যাত্রীদের সহায়তায় মুক্তি পারভীন নিরাপ'দে সন্তান প্রসব করেন।

ততক্ষণে ট্রেন এসে দিনাজপুর 'ষ্টেশনে পৌছালেও ফুল না পড়ার কারণে মুক্তি পারভীন ও নবজাতককে ট্রেন থেকে নামানোর মত পরিস্থিতি ছিলনা। এ সময় স্টেশন সুপারিনটেনডেন্ট এবিএম জিয়াউর রহমান সিদ্ধান্ত দেন প্রসুতি মাতা মুক্তি পারভীন ও নবজাতক নিরাপ'দ না হওয়া পর্যন্ত ট্রেন দিনাজপুর 'ষ্টেশন ছেড়ে যাব'েনা।

পরে জিআরপি পুলিশ ও মহিলা 'ষ্টেশন মা'ষ্টার নার্গিস বেগম এবং একজন স্থানীয় প্র'শিক্ষণ প্রা'প্ত দাইয়ের সহযোগীতায় প্রসুতি মাতা মুক্তি পারভীন ও নবজাতককে নিরাপ'দে ট্রেন থেকে নামিয়ে বিনা ভাড়ায় হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্সে পৌঁছে দিয়েছে দিনাজপুর রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ। আমর'া রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের সহযোগীতায় পেয়ে খুব খুশি। দ্রুতযান ট্রেন নির্ধারিত সময়ের ১৩ মিনিট পর সকাল ১০ টার ১৫ মিনিটের স্থলে ১০ টা ২৭ মিনিটে দিনাজপুর 'ষ্টেশন ছেড়ে যায় আন্তঃনগর দ্রুতযান এক্সপ্রেস ট্রেন।

এব্যাপারে জানতে চাইলে স্টেশন সুপারিনটেনডেন্ট এবিএম জিয়াউর রহমান বি'ষয়টি জানান,আমর'া সকল প্রকার সহযোগীতা দিয়ে প্রসুতি মাতা মুক্তি পারভীন ও নবজাতককে নিরাপ'দে ট্রেন থেকে নামিয়ে বিনা ভাড়ায় হাসপাতালে অ্যাম্বুলেন্সে পৌঁছে দিয়েছি। বি'ষয়টি বাংরাদেশ রেলওয়ে লালমনিরহাট বিভাগীয় ব্যবস্থাপক শাহী সুফি নুর মোহাম্ম'দকে জানানো হলে তিনি বাংলাদেশের চিলাহাটি ও ভারতের হলদিবাড়ির মধ্যে চলাচলকারী মিতালী ট্রেনের নামে নবজাতক কন্যা সন্তানটির নামে মিতালী রাখতে বলেন। তার নির্দেশনায় নবজাতকের নাম মিতালী রাখা হয়েছে। নবজাতকের মা- বাবা এই নাম রাখায় খবিই খুশি।

এ ব্যাপরে দিনাজপুর ২৫০ শয্যা বিশি'ষ্ট জেনারেল হাসা'পাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ পারভেজ সোহেল রানা জানান, প্রসুতি মাতা পারভীন ও নবজাতক মিতালীকে গাইনী ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়েছে। মা ও নবজাতক সুস্থ্য রয়েছে। একগু'চ্ছ ফুল, ফল, বিনা মূল্যে প্রয়োজনীয় ওষুধ ও নতুন জামাকাপড় উপহার দেয়া হয়েছে। আগামীকাল তাদেরকে হাসা'পাতাল তেকে ছাড়পত্র দেয়া 'হতে পারে।