মায়ের মৃত্যুর পর রাতে ছাড়া পেলেন জুয়াড়ি, সকালে মারা গেল শিশু সন্তানও

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে প্যারালাইসিস রোগে সজ্জাশায়ী মায়ের মৃ'ত্যু হওয়ায় পুলিশের হাতে গ্রে'প্ত ার এক জুয়াড়িকে মান'বিক কারণে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

শনিবার সকালে মায়ের লা'শ দা'ফনের প্রস্তুতির এক পর্যায়ে হঠাৎ মৃ'ত্যু কোলে ঢলে পড়েন ওই ব্যক্তির সদ্য ভুমি'ষ্ট তিন দিন বয়সী শিশু জিসান। এই হৃদয় বিদারক এ ঘটনাটি ঘটেছে কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ী উপজে’লার নাওডাঙ্গা ইউনিয়নের পশ্চিমফুলমতি গ্রামে।ছাড়া পাওয়া জুয়াড়ির নাম আব্দুল কুদ্দুস (৩৫)। তিনি ওই গ্রামের শাহাজাদা মিয়ার ছেলে।

পশ্চিমফুলমতি গ্রামের ইউপি সদস্য শহিদুল ইসলামসহ অনেকেই জানান, শুক্রবার শেষ 'বিকালে ফুলবাড়ী থা'নার পুলিশ পশ্চিমফুলমতি এলাকায় অ'ভিযান চালিয়ে তাসের মাধ্যমে জুয়া খেলার সময় আব্দুল কুদ্দুসসহ ৭ জুয়াড়িকে গ্রে'প্ত ার করে।

পুলিশের হাতে ছেলে গ্রে'প্ত ার হওয়ার খবর শুনে কুদ্দুসের অ'সুস্থ্য মা কুলসুম বেওয়া (৬০) আরও বেশি অ'সুস্থ্য হয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে রাত দশটার দিকে তিনি মা'রা যান। পরে মৃ'ত মায়ের দা'ফন ক্রিয়া সম্পূর্ণ করার জন্য মান'বিক কারনে রাতে তাকে ছেড়ে দেয় পুলিশ।

এদিকে বাড়ীতে মৃ'ত মায়ের সৎকারের প্রস্তুতির এক পর্যায়ে শনিবার সকালে মা'রা যায় কুদ্দুসের সদ্য ভুমি'ষ্ট তিন দিন বয়সী শিশু পুত্র জিসান। কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে দাদি ও নাতির মৃ'ত্যুতে পরিবারটিসহ ওই এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে। পরে শনিবার সকাল সাড়ে ১১টায় দিকে পারিবারিক কবর স্থানে দাদী-নাতির দা'ফন করা হয়েছে।

এ প্রসঙ্গে ফুলবাড়ী থা'নার ওসি রাজীব কুমা'র রায় জানান, এক জুয়াড়ির অ'সুস্থ মায়ের মৃ'ত্যু হওয়ায় উর্'দ্ধতন ক'র্তৃপক্ষের নিদের্শ ও মান'বিক কারণে আব্দুল কুদ্দুস নামের এক জুয়াড়িকে ইউপি সদস্যের জিম্মায় ছেড়ে দেওয়া হয়। বাকী গ্রে'প্ত ারকৃত ৬ জুয়াড়িকে শনিবার কুড়িগ্রাম জে’ল হাজতে পাঠানো হয়েছে।