আপন ছোট ভাইকে ধরে নিয়ে কিডনি বিক্রির করতে গেলেন বড় ভাই

চাঁদপুরের হাজীগঞ্জে আপন ছোট ভাইকে অ’পহ”র’ণ করে কিডনি 'বিক্রির চেষ্টার অ’ভিযো’গে বড় ভাই ফাহাদ বিন ইহসান তারেককে আট’ক করেছে পুলিশ। অ’পহ’রণে’র শি”কা’র ছোট ভাইয়ের নাম রায়হান এহসান রিহান (৫)।

এ ঘটনায় ছেলের বি’রু”দ্ধে হাজীগঞ্জ থা’নায় মা”ম’লা দা’য়ের করেছেন বাবা মো. আবু তাহের। রিহানের পরিবার সূত্র জানায়, রিহানকে অ’প’হর”ণের পর বাসায় একটি চিঠি লিখে যান বড় ভাই তারেক।

চিঠিতে তারেক উল্লেখ করেন, আমি শুধু এই দিনটির অ’পেক্ষায় ছিলাম। আমি যেদিন কিডনি 'বিক্রি করেছিলাম, ঠিক সেদিন থেকে আপনারা আমার অ’বহে”লা করা শুরু করেছেন। অথচ আপনাদের অ”'ত্যা’চা’রে আমি বাধ্য হয়েছি নিজের অ”ঙ্গ 'বিক্রি করতে। আপনারা আমার জীবনের সব শেষ করে দিয়েছেন। আমার স্ত্রী অন্যের বি’ছানায় স’ঙ্গী শুধু আপনাদের জন্য।

‘আমার সন্তানের মুখ পর্যন্ত আমি আজও দেখি নাই। আমার জীবন ন”ষ্ট করে আপনারা শান্তিতে থাকবেন ভাবলেন কীভাবে? আমি এতদিন অ’পেক্ষা করেছি। আপনাদের হাতে সুযোগ থাকা সত্ত্বেও আপনারা আমার কোনো ব্যবস্থা করে দেন নাই। আপনার সন্তান যেখানে বেকার সেখানে আপনারা হি’ন্দুর সন্তানকে ২০ ল’ক্ষ টাকা দেন ব্য”বসা করার জন্য। আপনাদের টাকা-পয়সা মানুষের জন্য।

এতদিন কোনো বাচ্চা পেশে’ন্ট পাই নাই। তাই আপনাদের সবকিছু মুখ বুজে স”হ্য করেছি। আমার মতো এবার আপনাদের ছোট ছেলে কি’ড’নি দিবে। আপনারা আমার ব্যবস্থা করেন নাই তাই এটা ছাড়া আমার আর কিছুই করার ছিল না। আপনারা আপনাদের টাকা-পয়সা নিয়েই থাকেন। আর মানুষের ছেলেদেরই বড় বানান। আমার কিডনি 'বিক্রির সময় যেমন কিছু করতে পারেন নাই। এবারও পারবেন না, আপনাদের ছোট ছেলের সময়।’

জানা গেছে, তিন বছর আছে ফাহাদ বিন ইহসান তারেক টাকার জন্য তার একটি কিডনি 'বিক্রি করেন। এছাড়া বিভিন্ন বিষয়ে পরিবারের সদস্যদের স’ঙ্গে ঝা”মেলাই জ’ড়াতেন তিনি। চিঠির সূত্র ধরেই হাজীগঞ্জ থা'নায় সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন তারেকের বাবা। পরে কৌশলে তারেককে পাঁচ লাখ টাকা দেয়ার কথা বলে হাজীগঞ্জে নিয়ে আসেন। পরে গো”প’নে হাজীগঞ্জ থা'নার উপপরিদর্শক (এসআই) মোশারফ তারেককে আ’ট’ক করেন।

আটক তারেকের মা ফরিদা সুলতানা বলেন, ‘আমার ছেলে আগে থেকেই মা’দ”কের স’ঙ্গে জ”ড়ি’ত। নে”শা’র কারণে সে ফ্যা'মিলির অনেক টাকা ন’ষ্ট করেছে। তাই আমর'া তাকে টাকা দিতে সা’হস করিনি।’পুলিশের হাতে আট”ক তারেক বলেন, ‘আমি আমার ছোট ভাইকে অ’পহ”রণ করেছি শুধুমাত্র টাকার জন্য। কি’ডনি 'বিক্রির কথাটি চিঠিতে লিখে মা-বাবাকে ভ”য় দেখিয়েছিলাম। তারা আমাকে বা”ধ্য করেছেন এমন ঘটনা ঘটাতে।’

মা”ম’লার তদ’ন্তকা’রী কর্মকর্তা এসআই মোশারফ বলেন, অ’প’হ”রণকারীকে আট”ক করা হয়েছে এবং অ’পহৃ”ত রিহানও আমা'দের জি”ম্মায় রয়েছে। আগামীকাল (মঙ্গলবার) অ’পহ”রণকা’রীকে আ”দাল’তে পাঠানো হবে। এ বিষয়ে হাজীগঞ্জ থা'নার ভারপ্রা'প্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আলমগীর হোসেন রনি বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আসা”মিকে আ’ট’ক করা হয়েছে। তদ”ন্তের মাধ্যমে পরবর্তী আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।