‘লা’শ কা’টা ঘরে’ নারীর ম’রদেহে থাকা স্বর্ণালংকার চু’রি, ৩ ডোম আ’টক

সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার মিরপুর মহল্লার কালাচাঁন মোড়ে বাস ও ট্রাকের মাঝখানে চা’পা পড়ে রিকশা আরোহী বনবাড়ীয়া সরকরি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষিকা ইফরাত সুলতানা রুনী (৪০), তার ছেলে মাশবুবুর রহমান আদী (১২) ও মেয়ে ছোয়েবা রহমান (৭) নি'হত হয়।

পরে ঘটনাস্থল থেকে সিরাজগঞ্জ সদর থা'না পুলিশ নি'হত শিক্ষিকা ও ছেলের লা'শ ২৫০ শয্যা বিশি'ষ্ট শেখ ফজিলাতুন্নেচ্ছা মুজিব জেনারেল হাসপাতাল মর'্গে পাঠান।

জে’লা ম্যাজি'ষ্ট্রেট বরাবর পরিবার থেকে ময়নাতদ'ন্ত না করার পরিপ্রেক্ষিতে আবেদন করে। এরপর লা'শ দা'ফন করার জন্য রোববার (০৭ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় মর'্গে থেকে লা'শ বাসায় নিয়ে যায়।

পরিবারের অ'ভিযোগ, নি'হত শিক্ষিকার সঙ্গে সোনার একটি চেইন, দুইটি অ্যাংটি, দুইটি হাতের বালা, একজোড়া কানের দুল ও নাকফুল ছিল। মর'্গে থেকে লা'শ পাওয়ার পর শিক্ষিকার সঙ্গে থাকা স্বর্ণালঙ্কার পায়নি মর'্মে সিরাজগঞ্জ সদর থা'নাকে অবগত করেন নি'হতের স্বজনেরা।

পরে পুলিশ সোমবার ২৫০ শয্যা বিশি'ষ্ট শেখ ফজিলাতুন্নেচ্ছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের ডোম রানা, শাহ আলম, সুমনকে আট'ক করে জিজ্ঞাসাবাদে তারা গলার চেইন, দুইটি অ্যাংটি, দুইটি হাতের বালা, একজোড়া কানের দুল ও নাকফুল চুরির কথা স্বীকার করে। পরে তাদের দেয়া তথ্য মতে, বাসা থেকে স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করে পুলিশ।

এ বি'ষয়ে সিরাজগঞ্জ সদর থা'নার অফিসার ইনচার্জ বাহাউদ্দিন ফারুকী জানান, নি'হত শিক্ষিকার স্বজনদের অ'ভিযোগের ভিত্তিতে ৩ ডোমকে আট'ক করে জিজ্ঞাসাবাদে স্বর্ণালঙ্কার উদ্ধার করেছি। পরিবারের কাছে হস্তান্তর করব।

এদিকে, শেখ ফজিলাতুন্নেচ্ছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের আরএমও ফরিদুল ইসলাম বলেন, এ বি'ষয়ে আমি অবগত না। যদি এই ধরনের ঘটনা ঘটে অবশ্যই ডোমের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

উল্লেখ্য, রোববার (৭ ফেব্রুয়ারি) স্কুল শিক্ষিকা রুনী তার ছেলে ও মেয়েকে নিয়ে ব্যাটারিচালিত রিকশাযোগে শহরে যাচ্ছিলেন। রিকশাটি কালাচাঁন মোড় এলাকায় পৌঁছালে বেলকুচি থেকে সিরাজগঞ্জ গামী জাহাঙ্গীর পরিবহনের একটি বাস সামনের একটি ট্রাককে ওভারটেক করতে গিয়ে রিকশাটিকে সজোরে চা’পা দেয়। এতে রিকশাটি ট্রাকের পেছনে ধুমড়ে মুচড়ে যায় এবং ঘটনাস্থলেই স্কুল শিক্ষিকার রুনী ও তার ছেলে আদী নি'হত হয়।

এসময় গু'রুতর আ'হত হয় রিকশাচালক চাঁন মিয়া ও শিশু ছোয়েবা। স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যাব'িশি'ষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হাসপাতালে ভর্তি করলে চিকিৎসক শিশু ছোয়েবাকে মৃ'ত ঘোষণা করে।