মায়ের ঝুল’ন্ত লা’শ দেখে স্ট্রোক করলেন ছেলে

লক্ষ্মীপুরে জোলেখা বেগম (৪০) নামে এক গৃ’হবধূর ঝু’লন্ত ম’রদেহ উ’দ্ধার করেছে পুলিশ। আর মায়ের ঝু’লন্ত লা’শ দেখে স্ট্রোক করেছেন তার বড় ছেলে খোরশেদ আলম।

মঙ্গলবার (৯ মার্চ) সকাল ১০টার দিকে সদর উপজে’লার লাহারকান্দি ইউনিয়নের চাঁদখালী গ্রাম থেকে জোলেখার ম’রদেহ উ’দ্ধার করা হয়। তিনি ওই গ্রামের মহিন উদ্দিনের স্ত্রী। তার চার ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

পরিবার ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সোমবার রাতের খাওয়া শেষে ১২টার দিকে জোলেখা ঘু'মাতে যান। তখন পরিবারের অন্য সদস্যরাও ঘু'মিয়ে পড়েছিলেন। রাতের কোনো একসময় ঘর থেকে বের হয়ে জোলেখা কাঁঠাল গাছের সঙ্গে রসি ঝু’লিয়ে গ’লায় ফাঁ'’স দেন। সকালে ঘু'ম থেকে উঠে জোলেখার পূত্রবধূ ফেন্সি বেগম শাশুড়িকে ঝু’লন্ত অবস্থায় দেখতে পান। পরে তার চি’ৎকারে আশপাশের লোকজন ছুটে আসে।

এদিকে মায়ের ঝু’লন্ত ম’রদেহ দেখে তার বড় ছেলে সিএনজি অটোরিকশাচালক খোরশেদ আলম স্ট্রোক করেন। তাকে উ’দ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করে স্থানীয়রা। জোলেখার পূত্রবধূ ফেন্সি বেগম বলেন, ‘আমার শাশুড়ির বুকে ব্য’থা ছিল। ব্য’থা উঠলে তিনি সহ্য করতে পারেন না।

প্রায়ই তার মা’নসিক স’মস্যা দেখা দিতো। রাতে খাওয়া শেষে তিনি ঘু'মাতে যান। কখন এ ঘটনা ঘটিয়েছেন তা বলতে পারছি না। সকালে উঠে তার ঝু’লন্ত ম’রদেহ দেখতে পাই। বুকের ব্য’থা সহ্য করতে না পেরেই হয়তো তিনি আত্মহ’’'ত্যা করেছেন।’

লক্ষ্মীপুর সদর মডেল থা'নার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নজরুল ইসলাম বলেন, ‘খবর পেয়ে ঘটনাস্থল থেকে ম’রদেহ উ’দ্ধার করা হয়েছে। পরিবারের সদস্য ও স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলেছি। ম’য়নাত’দন্তের জন্য ম’রদেহ সদর হাসপাতালের ম’র্গে পাঠানো হয়েছে। প্রতিবেদন পেলে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’