মর্মা’ন্তিক! সকালে কালের ক’ণ্ঠে রজ’নীর স্বা’বল’ম্বী হওয়ার গল্প, রাতে আ’ত্মহ’ত্যা

কু'ষ্টিয়া শহরে রজনী অধিকারী (১৯) নামে এক কলেজছাত্রী গলায় ফাঁ'স দিয়ে আত্মহ'ত্যা করেছেন। গতকাল সোমবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে শহরের থা'নাপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বি'ষয়টি নিশ্চিত করেছেন থা'না পুলিশের ভারপ্রা'প্ত কর্মকর্তা (ওসি) শওকত কবির।

রজনী অধিকারী কু'ষ্টিয়া শহরের থা'নাপাড়া এলাকার ৯ নম্বর পলানবক্স এলাকার অশোক অধিকারীর মেয়ে। তিনি ফুড পান্ডার কু'ষ্টিয়া অফিসে ডেলিভারিম্যান হিসেবে চাকরি করতেন। রজনী কু'ষ্টিয়া আইডিয়াল পলিটেকনিকের ডিপ্লোমা ইন কম্পিউটার বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী। পড়ালেখার পাশাপাশি স্বাবলম্বী হওয়ার জন্য ফুড ডেলিভারির চাকরি করতেন। গতকাল সোমবার কালের কণ্ঠে রজনীকে নিয়ে রজনীর সাবলম্বী হওয়ার গল্প শিরোনামে একটি সচিত্র প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছিল।

নি'হতের পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, সোমবার রাতে পরিবারের লোকজনের অজান্তে ফাঁ'স দেয় রজনী। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে পরিবারের লোকজন তার ঝু'লন্ত মর'দেহ দেখতে পায়।

নি'হতের বাবা অশোক অধিকারী বলেন, আমার মেয়ে খুব আদরের ছিল। আদরের মেয়ে আর নেই, আত্মহ'ত্যা করেছে। রজনী খুব রাগী ও অ'ভিমানী ছিল। তার কোনো এক মেয়ে বন্ধুর ওপর অ'ভিমান করে গলায় ফাঁ'স দিয়ে আত্মহ'ত্যা করেছে।

রজনীর চাচাতো বোন যুথিকা জানায়, তার বন্ধু কৃষ্ণার সাথে রাগারাগির একপর্যায়ে সে মোবাইলে ভিডিও কল চালু করে আত্মহ'ত্যা করে।

ফুড পান্ডার কু'ষ্টিয়া অফিসের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক ফজলে রাব্বী বলেন, রজনী আমা'দের এখানে বিনয়ের সঙ্গে মন দিয়ে কাজ করত। মেয়েটা খুব পরিশ্রমী ছিল। ভালো কাজের দক্ষতাও ছিল। আসলে কী কারণে সে আত্মহ'ত্যা করল বুঝে উঠতে পারছি না।

রজনীর বান্ধবীরা বলেন, রজনী খুব জেদি ছিল। যখন-তখন মান অ'ভিমান করে হাত কাটত, না খেয়ে থাকত। সে তার এক বন্ধুর ওপর অ'ভিমান করে ফাঁ'স দিয়ে আত্মহ'ত্যা করেছে। ওই বন্ধুর বাড়ি রাজবাড়ী জে’লায়।

বি'ষয়টি নিশ্চিত করে কু'ষ্টিয়া মডেল থা'না পুলিশের ভারপ্রা'প্ত কর্মকর্তা (ওসি) শওকত কবির বলেন, মর'দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদ'ন্তের জন্য কু'ষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর'্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদ'ন্তের প্রতিবেদন আসার পর মৃ'ত্যুর সঠিক কারণ জানা যাব'ে। তবে পরিবারের সদস্যদের দেয়া তথ্য মতো প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, একজন মেয়ে বন্ধুর ওপর অ'ভিমান করে মেয়েটি ভিডিও কল অন করে গলায় ফাঁ'স দিয়ে আত্মহ'ত্যা করেছে। আমর'া তার বন্ধ হওয়া ফোনটি জব্দ করেছি। ঘটনায় থা'নায় একটি অ’পমৃ'ত্যুর মাম'লা হয়েছে।