9 কিলোমিটার পথ সাইকেল চালিয়ে 20 মিনিটে খাবার পৌঁছে দিয়েছিল জোমাটো ডেলিভারি বয়!

আপনারা সকলেই জানেন যে এখন কার যুগে অনলাইন খাবার বিতরণ অ্যাপটি ঘরে বসে বহুলোকের পেট ভরিয়ে দিচ্ছে। বিভিন্ন আ্যপ গুলির মধ্যে জোমাটো অন্যতম। আমরা খাবার অর্ডার দিয়ে নির্দিষ্ট সময়ে খাবার পেয়ে যাই। কিন্তু এর পিছনে মানুষের কঠোর পরিশ্রমকে আমরা প্রায়শই ভুলে যাই।

একজন কৃষক যেমন কঠোর পরিশ্রম করে বীজ বপন করে শস্য ফলায় তেমন ভাবেই আমাদের বাড়িতে খাবার সরবরাহকারীরা নিজের এবং তার পরিবারের দুবেলা রুটির জন্য কঠোর পরিশ্রম করে। সম্প্রতি ডেলিভারি বয়ের সম্পর্কিত একটি খবর প্রকাশ পেয়েছে। এই ঘটনাটি ঘটেছে হায়দ্রাবাদের কিং কোটি এলাকায়।

যেখানে অনলাইন ফুড ডেলিভারীর ব্যবস্থা জোমাটোর একটি ডেলিভারি বয় 9 কিলোমিটার সাইকেল চালিয়ে অর্ডার সরবরাহ শেষ করে। বলা হয় কিং কোটি এলাকার বাসিন্দা রবিন মুখের 14 ই জুন রাতে সাড়ে দশটায় জোমাটো থেকে খাবার অর্ডার করেছিলেন।

যার পরে এই খাবার ডেলিভারি দেওয়ার দায়িত্ব জোমাটো ডেলিভারি এক্সিকিউটিভ মহাম্মদ আকিল আহমেদকে দেওয়া হয়েছিল। আসুন আমরা আপনাকে বলি যে এই প্রদত্ত ডেলিভারির কাজটি আকিল কে মাত্র কুড়ি মিনিটের মধ্যে ডেলিভারি করতে হয়েছিল।

রবিন মুকেশ তার ডেলিভারি পাওয়ার সময় আকিল কে দেখে খুব অবাক হয়েছিলেন। আকিলের কঠোর পরিশ্রম এবং উৎসর্গ দেখে মুগ্ধ হয়ে রবিন তার ছবি তুলে ফেসবুকে আপলোড করেছেন। সেই পোস্টে রবিন, আকিলের পুরো গল্পটি জানিয়েছেন। লোকেরা এটি পড়ার পরে তাকে উৎসাহিত করেছে।

অনেক ব্যবহারকারীরা আকিলের জন্য কিছু করা উচিত বলে পরামর্শ দিয়েছেন এবং জনগণের এই ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া দেখে রবিন আকিল কে একটি বাইক কিনে উপহার দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। রবিনের এই প্রচার এর প্রভাব এমন ছিল যে তার 10 ঘণ্টার মধ্যে 60 হাজার টাকা জোগাড় হয়ে যায়।

প্রচার বন্ধ হয়ে যাওয়ার পরেও রবিন 73 হাজার 370 টাকা সংগ্রহ করেছিলেন। আপনাদের তথ্যের জন্য জানিয়ে দি বাইক কিনে দেওয়ার পরে বাকি টাকা রবিন তার কলেজের ফি জমা দেওয়ার জন্য দিয়েছিল। গত শুক্রবার রবিন কয়েকটি ছবি সহ একটি ফেসবুক পোস্ট করেন এবং বলেন যে আকিলের সাহায্য করার বিষয়টি সম্পূর্ণ হয়েছে।

আকিল একটি নতুন বাইক পেয়েছে যার ছবি এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়ে উঠেছে।

রবিন ফেসবুক পোস্টের ক্যাপশনে লিখেছেন, হ্যালো বন্ধুরা প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী, হেলমেট, রেইনকোট, মাক্স এবং স্যানিটাইজার এর সাথে আকিলের কাছে টিভিএস এক্সএল বাইকের চাবি হস্তান্তর করা হচ্ছে,

বাকি অর্থ তার কলেজের ফিস জমা দেওয়ার জন্য দেওয়া হচ্ছে। সংবাদ মাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে আকিল আহমেদ গত এক বছর ধরে জোমাটো ডেলিভারি বয় হিসেবে কাজ করছেন। শুধু তাই নয় তিনি দ্বিতীয় বর্ষের ইঞ্জিনিয়ারিং এর ছাত্র। আকিল জানান তার বাড়ি আর্থিক অবস্থা ভালো নয় সেই কারণে পড়াশোনার পাশাপাশি তিনি এ কাজটি করেন।।