ও সুখে থাক, আমিও সুখে আছি, লিখে যুবকের ‘আ’ত্মহ’ত্যা’

গাছের সঙ্গে ঝু'লন্ত অবস্থায় এক যুবকের মর'দে'হ উ'দ্ধার করা হয়েছে। ঘটনাস্থলে একটি চিরকু’ট পাওয়া গেছে। এলাকাবাসী দা’বি করেন স্ত্রীর স’ঙ্গে অ'ভিমান করে গ’লায় দড়ি দিয়ে আ'ত্মহ'ত্যা করেন ওই যুবক।

নি'হতের নাম মো. নয়ন (২৬)। তিনি স্থানীয় বাসি'ন্দা নুরুল আলমের সন্তান। ঘটনাটি ঘটে চট্টগ্রামের রাউজান উপজে’লা পৌরসভার ৯ নম্বর ওয়ার্ডের আইলিখীল গ্রামে।

এলাকাবাসী জানান, তিন বছর আগে মা-বাবাকে না জানিয়ে সানজিদা তাসলিমা নামে স্বামী পরিত্য’ক্তা এক নারীকে বিয়ে করেন নয়ন। এরপর থেকে স্ত্রীকে নিয়ে শ্ব’শুরবাড়িতেই থাকতেন। মাঝে মধ্যে বাড়িতে আসতেন। আবার চলেও যেতেন।

তিনদিন আগে স্ত্রীর স’ঙ্গে ঝগড়া করে নিজের বাড়িতে চলে আসেন নয়ন। শুক্রবার রাতে পরিবারের সবার স’ঙ্গে খাবার খেয়ে শু’য়েও পড়েন। কিন্তু শনিবার সকালে বাড়ির অদূরে একটি গাছের স’ঙ্গে তাকে ঝু’ল’ন্ত অবস্থায় পাওয়া যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লা”শ’টি উ'দ্ধার করে।

ঘটনা নিশ্চিত করে রাউজান থা'নার ভারপ্রা'প্ত কর্মক'র্তা (ওসি) আবদুল্লাহ আল হারুন বলেন, ‘স্থানীয়রা খবর দেয়ার পর নয়নের লা'শ উ'দ্ধার করা হয়। এসময় ঘটনাস্থলেই একটি চি’রকু’ট পাওয়া যায়।’

সেই চি'রকু'টে নয়ন লিখেছেন, ‘ভালোবাসা, আমা'র জানকে। আমা'র জীবনের চেয়েও বেশি ভালোবাসি। তুমি আমাকে দেখতে আসবে না, এটা আমা'র কথা। আমি অনেক ভালোবাসি, তোমাকে সানজিদা। আমা'র জান। আমা'র লা'শের পাশে আমা'র বউ যেন না আসে, আমা'র মর'া মুখ দেখতে না পারে। এই ইচ্ছেটা পূরণ করবেন। আমা'র জন্য কাউকে দায় করবেন না। ও সুখে থাক, আমিও অনেক সুখে আছি। বিদায়..।’