এক অদম্য বাবার বাস্তব গল্প; জুতো সেলাইয়ের ফাঁকে ছেলেকে পাঠদান

বাস্তব গল্প- পৃথিবী কতটা বাস্তব তা এই ছবিটিই বলে দেয়। নিজেদের স্থায়ী বাড়ি ছেড়ে জীবন জী’'বিকার তাগিতে চলে এসেছেন ব্যস্ত শহরে। যে শহরে কারো অন্য কারো দিকে তাকানোর সময় নেই। সবাই নিজ নিজ কাজে ব্যস্ত। জী’'বিকার তাগিতে হাতে তুলে নিয়েছেন জুতার কালি, সুঁই সুতা। চোখে স্বপ্ন জাগে সন্তানরা যেন তার মতো ক’’'ষ্ট না করে।

সেই ইচ্ছেকে সামনে রেখে ছে’লেকে ভর্তি করিয়েছেন স্কুলে। নিজের জীবন উজ্জ্ব'ল করার ইচ্ছা থাকলেও তা পারিপাশ্বির্ক অবস্থার প্রেক্ষিতে সম্ভব হয়। তাই ছে’লের জীবনকে উজ্জ্ব'ল করতে বাবার এই অদম্য ইচ্ছা। আর তাই তিনি জুতো সেলাইয়ের পাশাপাশি নিজের সন্তানকে করছেন পাঠ দান। এতে তার কোন ল’জ্জা বা বির’ক্তি নেই।

গ্রামের বাড়ি ফরিদপুর জে’লায়, তার নাম প্রা’ণেশ রিসি। জীবনের তাগিতে শহরে চলে এসেছেন পরিবারসহ। মিরপুর ১৩ নম্বরে ভাড়া থাকেন একটি ঝুপড়ির মধ্যে।

প্রতিদিনের বেঁ’চে থাকার সংগ্রাম করতে হয় প্রা’ণশ রিসিকে। তাই তো সকাল হলেই হাতে জুতোর কালি, সুঁই, সুতো, কাজ সারাইরে প্রয়োজনীয় উপকরণ এক হাতে অ’পর হাতে ছে’লেকে নিয়ে বেড়িয়ে পড়েন।

প্রা’ণেশ রিসি রাজধানীল সেগু'’বাগিচা এলাকায় দীর্ঘদিন ধরে মুচির কাজ করে আসছেন। তার ছে’লেকে ভর্তি করিয়েছে সেগু'’নবাগিচা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। তার ছে’লের নাম নক্ষত্র। সে এখন ২য় শ্রেণীতে পড়ছেন। সন্ধ্যা হলে ফিরে যান মিরপুর ১৪ নম্বরে, তবে তার আগে স্কুল ছুটির পর নিজের পাশে বসিয়ে ছে’লেকে পড়া দেখিয়ে দেন।

প্রা’ণেশ রিসির সাথে কথা বলে জানা যায়, তার ছে’লেকে তিনি নিজের অবস্থায় দেখতে চান না। ছে’লে যেন নিজের ও দেশের মানুষের জন্য কিছু করতে পারে সেই স্বপ্নই তার। এর বেশি কিছু চাওয়ার নেই তার। তবে তা অবশ্যই সৎ পথে থেকে। তিনি নিজে যেমন অন্যায় টাকা খান না, তার ছে’লেও যেন অন্যায় টাকা কখনো ছুঁয়েও না দেখে।