ফেরারি আসামীর থানায় আত্মসমর্পণ, হাত কড়া না দিয়ে ফুল দিলেন ওসি

কিশোরগঞ্জের মিঠামইন থা'নায় ফেরারি এক আ'সামিকে নিয়ে অভূ'ত পূর্ব ঘটনা ঘটেছে। শনিবার (১৩ মার্চ) মো. সোলাইমান নামে ফেরারি এই আ'সামির হাতে হাতকড়ার বদলে ফুল তুলে ‍দিয়েছেন ওসি মো. জাকির রব্বানী। দীর্ঘদিন পলাতক থাকার পর 'বিকালে থা'নায় আত্মসমর'্পণ করতে এলে অভূ'ত পূর্ব এই ঘটনাটি ঘটে।

মিঠামইন থা'নার ওসি মো. জাকির রব্বানী জানান, মো. সোলাইমান মিঠামইন উপজে’লার শরীফপুর গ্রামের নূরুল ইসলামের ছেলে। নারায়ণগঞ্জের আ'দালতে তার বিরুদ্ধে একটি সিআর মাম'লা রয়েছে। এই মাম'লায় দুই বছরের মতো সময় ধরে তিনি পলাতক রয়েছেন।

গ্রেফতারি পরোয়ানাভুক্ত আ'সামি মো. সোলাইমানকে গ্রে'প্ত ারের জন্য পুলিশ একাধিকবার তার বাড়িসহ বিভিন্ন স্থানে অ'ভিযান চালিয়েছে। কিন্তু তাকে গ্রে'প্ত ার করা যায়নি। এ অবস্থায় শনিবার (১৩ মার্চ) 'বিকালে হঠাৎ করে মিঠামইন থা'নার ডিউটি অফিসারের কাছে হাজির হন।তিনি ডিউটি অফিসারকে জানান, তার বিরুদ্ধে গ্রে'প্ত ারি পরোয়ানা রয়েছে। তিনি ধ’রা দিতে এসেছেন।

গ্রেফতারি পরোয়ানাভুক্ত আ'সামি মো. সোলাইমানের এমন কথাবার্তায় 'হতবাক হন ডিউটি অফিসার। তিনি মো. সোলাইমানকে নিয়ে যান থা'নার ওসি’র কক্ষে।ওসি মো. জাকির রব্বানীরও কিছুটা অবিশ্বা'স ঠেকে। তিনি সত্যিকার অর্থেই মো. সোলাইমান ওয়ারেন্টভুক্ত কি-না রেজিস্ট্রার খতিয়ে দেখতে বলেন। রেজিস্ট্রার দেখে জানা গেলো, সত্যিই মো. সোলাইমান ওয়ারেন্টভুক্ত একজন আ'সামি।

আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে নিজে নিজে ধ’রা দিতে থা'নায় চলে আসায় মো. সোলাইমানকে সাধুবাদ জানালেন ওসি মো. জাকির রব্বানী। মনে মনে সিদ্ধান্ত নিলেন, একজন অ'ভিযুক্ত বা অ’পরাধী হিসাবে তিনি লোকটাকে পুরস্কৃত করবেন না আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল ব্যক্তি হিসেবে তাকে পুরস্কৃত করবেন। যেন তাকে অনুসরণ করে অন্যান্য পলাতক আ'সামিরা এভাবে থা'নায় এসে হাজির হন।এ সিদ্ধান্ত থেকে ওসি মো. জাকির রব্বানী তার হাতে গো'লাপ ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানান আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হওয়া মো. সোলাইমানকে।

মো. সোলাইমান তখন জানান, গ্রে'প্ত ারি পরোয়ানা মাথায় নিয়ে দীর্ঘদিন যাব'ৎ তিনি পলাতক রয়েছেন। থা'না পুলিশ হন্যে হয়ে খুঁজছে গ্রে'প্ত ার করার জন্য, প্রায়শই পুলিশ বাড়িতে হানা দিচ্ছে। পলাতক জীবন মানেই অশান্তিময়। ফলে তার মনে শুভবুদ্ধির উদয় হয়। পুলিশ কে আর ক'ষ্ট দিবে না।

সিদ্ধান্ত নিলেন, পুলিশের হাতে ধ’রা দিবেন। তাই করলেন। নিজেই সশরীরে হাজির হলেন মিঠামইন থা'নায়।মিঠামইন থা'নার ওসি মো. জাকির রব্বানী আরো জানান, থা'নায় এসে মো. সোলাইমানকে ডিউটি অফিসার কি জন্য এসেছেন জিজ্ঞেস করলে সোলাইমান বলেন, আমার বিরুদ্ধে ওয়ারেন্ট আছে। আমি ধ’রা দিতে এসেছি।

এ সময় ডিউটি অফিসার অবাক দৃ'ষ্টিতে তাকিয়ে রইলেন। আর ভাবতে শুরু করলেন, ওয়ারেন্টভুক্ত একজন আ'সামিকে ধরতে কত ক'ষ্ট করতে হয়। থাকে জীবনের ঝুঁকি। গ্রে'প্ত ার এড়াতে কত কৌশল অবলম্বন করে। পুলিশকে আ'ক্রমণ করতে দ্বিধা করে না। আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে লোকটা চলে এসেছে থা'নায়। এরপরই ডিউটি অফিসার তাকে ওসি’র কাছে নিয়ে যান।ওসি মো. জাকির রব্বানী বলেন, আমর'া আহ্বান জানচ্ছি যারা পলাতক জীবন যাপনে রয়েছেন। আপনারা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হয়ে থা'না অথবা বিজ্ঞ আ'দালতে অতিসত্বর হাজির হন। আপনার বিরুদ্ধে যে মাম'লা থাকুক না কেন, তা আইনি মোকাবেলা করে নিষ্পত্তি করুন। বিচারিক কাজে সহযোগিতা করুন।