মানবেতর দিন কা’টাচ্ছিলেন ৩০২ কেজি ওজনের মাখন মিয়া, অবশেষে জীবনযু’দ্ধে হেরে গেলেন

অ'স্বাভা'বিক ওজন নিয়ে জীবন যুদ্ধে হেরে অবশেষে পৃথিবী থেকে বিদায় নিলেন ৩০২ কেজি ওজনের ব্রাহ্মণবাড়িয়ার মাখন মিয়া (৪০)।

সোমবার রাত ১০টার দিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর জেনারেল হাসপা’তালে মৃ'ত্যুবরণ করেন তিনি। মাখন মিয়া ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌর শহরের দক্ষিণ মৌড়াইলের মিলন মিয়ার ছেলে।

মাখন মিয়ার ওজন শুরুতে স্বাভা'বিক থাকলেও পরে ধীরে ধীরে তা বাড়তে থাকে। মৃ'ত্যুকালে তার ওজন দাঁড়ায় ৩০২ কেজি। অ'স্বাভা'বিক এই ওজন নিয়ে মানবেতর দিন কা'টাচ্ছিলেন মাখন মিয়া। অবশেষে ওজনের কারণে জীবন যুদ্ধে হেরে মৃ'ত্যুর কোলে ঢলে পড়েন মাখন মিয়া।

মাখন মিয়ার পরিবার জানায়, গত কয়েক দিন যাব'ত মাখন মিয়া শ্বা'সক'ষ্ট ও হৃ’দরো’গে ভু’গছিলেন। ২০ বছর বয়স পর্যন্ত স্বাভা'বিকই ছিলেন মাখন মিয়া। তারপর হঠাৎ বাড়তে থাকে তার শরীরের ওজন। শেষ পর্যন্ত তার ওজন ৩০২ কেজিতে ঠেকে।

চিকিৎসাও করেছেন একাধিকবার, কিন্তু অ'স্বাভা'বিক ওজনের কারণে ব্যা'হত হচ্ছিল চিকিৎসা। তার চিকিৎসা ব্যয় বহন করতে গিয়ে এখন নিঃস্ব মাখন মিয়ার পরিবার। দুই সন্তান ও স্ত্রী নিয়ে খেয়ে পরে বেঁচে থাকাই ছিল ক'ষ্টকর।

এই ব্যাপারে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর জেনারেল হাসপাতালের জরুরী বিভাগ কর্তব্যরত চিকিৎসক আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, সোমবার রাতে মাখন গু'রুতর অ'সুস্থ হয়ে পড়লে তাকে হাসপাতালে নিয়ে আসেন। তার ওজনের কারণে হাসপা’তালের ভেতরে জরুরী বিভাগে ঢুকানো সম্ভব হয়নি। হাসপা’তালের গেটেই তাকে চিকিৎসা দিতে হয়েছে।

তিনি বলেন, মাখনের শ্বা'সক'ষ্ট সমস্যা ছিল। হাসপাতালে তার বুকে ব্যথা ছিল। নিয়ে আসার কিছুক্ষণ পর ইসিজি করার পর তার মৃ'ত্যু নিশ্চিত নিশ্চিত করেন এই চিকিৎসক।