ভাবির সঙ্গে স্বামীর অবৈধ মেলামেশা, দেখার পর মিলল তিন মাসের অন্ত:সত্ত্বা স্ত্রীর লাশ!

চাঁদপুর জে’লার কচু’য়ার করইশ গ্রামে বুধবার রাতে সীমা আক্তার (২১) নামের এক গৃহবধূর ঝু’লন্ত লা'শ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় স্বামী নাছির উদ্দিন ও ভাবি খালেদা আক্তারকে গ্রে'প্ত ার করা হয়েছে। সীমা আক্তারের মা বিলকিছ আক্তার বাদী হয়ে কচু’য়া থা'নায় একটি হ'ত্যা মাম'লা দায়ের করেছেন।

মাম'লা সূত্রে জানা যায়, করইশ গ্রামের ইলিয়াস মিয়ার ছেলে নাছির উদ্দিনের সাথে প্রায় দুই বছর পূর্বে সামাজিকভাবে সীমার বিয়ে হয়। সম্প্রতি নাছির উদ্দিন তার বড় ভাই শেখ ফরিদের স্ত্রী খালেদা বেগমের (৩০) সাথে প'রকী'য়ায় জড়িয়ে পড়েন। প'রকী'য়ায় বাধা দেওয়ায় নাছির উদ্দিন সীমাকে নি'র্যা'তন করে আসছিল।

এনিয়ে এলাকায় কয়েক বার সালিস বৈ’ঠকও বসে। গতকাল বুধবার সন্ধ্যায় ভাবির সঙ্গে স্বামীকে আপ'ত্তিকর অবস্থায় দেখে ফেলেন সীমা। এ সময় সীমা প্রতিবাদ জানালে তাকে শ্বা'সরোধে হ'ত্যা করে তারা। পরবর্তীতে তারা সীমা আক্তারে গলায় র'শি দিয়ে নাছির উদ্দিনের বসত ঘরে আড়ার সাথে ঝু’লিয়ে রাখা হয়। সীমা তিন মাসের অন্ত:স’ত্ত্বা ছিলেন।

কচু’য়ার থা'নার ভারপ্রা'প্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্ম'দ মহিউদ্দিন জানান, মাম'লার আ'সামি হিসেবে সীমা আক্তারের স্বামী নাছির উদ্দিন ও তার বড় ভাবি খালেদা আক্তারকে গ্রে'প্ত ার করে কোর্টে সোপর্দ করার মাধ্যমে জে’ল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।