ছেলের চিৎকার শুনে দৌড়ে গেলেন মা, মায়ের চিৎকারে পালালেন খামার মালিক

লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে মুরগির খামারের দরজার তালা চুরির অ’পরাধে মিনহাজ (৪) নামের এক শিশুকে বৈদ্যুতিক শক দেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। বৃহস্পতিবার 'বিকেলে রায়পুর উপজে’লার কেরোয়া ইউনিয়নের মীরগঞ্জ বাজারের পাশে ইসমাইল বেপারীর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় মিনহাজের বাবা দিনমজুর জামাল হোসেন বৃহস্পতিবার রাতে খামার মালিক তোফায়েল আহমেদের বিরুদ্ধে থা'নায় অভিযোগ করেছে। আ'হত শিশু মিনহাজকে উদ্ধার করে রায়পুর সরকারি হাসপা'তালে ভর্তি করেছেন তার মা লাভলী।

হাসপা'তালে চিকিৎসাধীন শিশুর মা লাভলী বলেন, প্রতিদিনের মতো শিশু মিনহাজকে বাড়ির পাশে মীরগঞ্জ বাজারে হাফেজি মা'দ্রাসায় পাঠাই। দুপুরে মা'দ্রাসা ছুটি হলেও সে বাড়িতে না আসায় খোঁজ করি। একপর্যায়ে বাড়ির সামনের মুরগির খামারে মিনহাজকে চিৎকার দিতে শুনলে দৌড়ে গিয়ে আ'হতাবস্তায় উদ্ধার করি।

সে সময় লাভলীর চিৎকারে খামার মালিক তোফায়েল পালিয়ে যান। অভিযোগ রয়েছে, তোফায়েল গত তিন বছর মিটার না নিয়ে সরাসরি বিদ্যুতের খুঁটি থেকে অবৈধ সংযোগ নিয়ে খামারে বিদ্যুৎ ব্যবহার করছেন।

এ বিষয়ে লাভলী বেগম বলেন, ‌‘তোফায়েল আমার ছেলের মাথা ও ঘাড়ে বৈদ্যুতিক শক দিয়ে জ'খম করেছেন। আমার ছেলে নাকি তার খামারের দরজার তালা চুরি করেছে। ছেলের অবস্থা দেখে আশপাশের লোকজনকে ডাকতে চিৎকার দিলে তোফায়েল পালিয়ে যান।’

এ ব্যাপারে খামারি তোফায়েল আহমেদ জানান, মিনহাজ তার খামারের দরজার তালা চুরি করেছে। এ কারণে তাকে শক দেয়ার ভয় দেখানো হয়েছে। তাকে মারধর করা হয়নি। কর্মকর্তাদের কাছ থেকে অনুমতি নিয়েই মিটার ছাড়া খুঁটি থেকে সংযোগ নিয়ে বিদ্যুৎ ব্যবহার করছেন বলেও জানান তিনি।

কেরোয়া ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য সোহেল হোসেন বলেন, ‘শিশুটির মা-বাবা ঘটনাটি জানিয়েছেন। ঘটনাটি মর'্মান্তিক। উভয়পক্ষের সিদ্ধান্তে স্থানীয়ভাবে মীমাংসা করা হবে।’

রায়পুর থা'নার ভারপ্রা'প্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবদুল জলিল বলেন, ‘শিশুর বাবা ঘটনাটি জানিয়েছেন। খোঁজ-খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’