বিয়েতে কম দামি শাড়ি দেয়ায় হা’মলা

নোয়াখালীর সুধা'রামে বিয়েতে কনের মাকে কম দামি শাড়ি দেয়ায় হাম'লায় কনের ভাই জহির (১৫) আ'হত হয়েছে। তাকে আশ'ঙ্কাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে নোয়াখালী হাসপাতালে ভর্তি করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (১৯ মার্চ) রাতে সুধা'রামের পশ্চিম মাইজদী গ্রামে এই হাম'লার ঘটনা ঘটে।এর আগে একইদিন দুপুরে তার বড় ভাই রুবেলকেও পি'টিয়ে গু'রুতর আ'হত করা হয়। দুই ভাই হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। জহিরকে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা পাঠানো হবে বলে জানা গেছে।এই ঘটনায় রুবেলের পিতা ছালাউদ্দিন বাদী হয়ে রাতে অ'ভিযোগ দায়ের করলেও পুলিশ এখনো মাম'লা নেয়নি।

আ'হতদের স্বজনরা জানান, দীর্ঘ ৩০-৩৫ বছর যাব'ত পশ্চিম মাইজদীর গ্রামের আলমগীরের বাড়িতে ছালাউদ্দিন পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকেন। প্রতিবেশী ভাড়াটিয়া রাজুর সঙ্গে তার মেয়ের বিয়ে ঠিক হয়। তবে এতে বাড়ির মালিক আলমগীর ও তার লোকজন বাধা দেয়।একপর্যায়ে বাধা

উপেক্ষা করে বিয়ে দিলে বিরোধ সৃ'ষ্টি হয়। শুক্রবার বিয়ের দিনে মেয়ের মাকে শাড়ি দেয় বরপক্ষ। কিন্তু তা কম দামি হওয়ার বাড়ির মালিকের লোকজন এ নিয়ে সমস্যা করা শুরু করেন।

এ নিয়ে মেয়ের ভাইদের সঙ্গে বাড়ির মালিকের লোকজনের কথাকাটি হয়। এরপর বিয়ের অনুষ্ঠান শেষে লিটন, মামুন, মারুফ, অন্তর রাতে জহিরকে পাশ্ববর্তী বাগানে নিয়ে বেদম মারধর করে।এছাড়া হাম'লা চালিয়ে তাদের স্বর্ণালঙ্কারও লুট করেছে বলে অ'ভিযোগ করেছেন মেয়ের মা মোবাশ্বেরা।

সুধা'রাম থা'নার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ইকবাল হোসেন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ ঘটনা সম্পর্কে অবগত হয়েছি। তবে এটি তারা নিজেদের মধ্যে মীমাংসা করবেন বলে জানিয়েছেন তারা।সুধা'রাম থা'নার ভারপ্রা'প্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাহেদ উদ্দিন জানান, এ ঘটনা তদ'ন্ত করে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে।