দশম শ্রেণীর ছাত্র, ইউটিউব দেখে স্ট্রবেরি চাষ শিখে লাখ টাকা উপার্জন

দেশের অনেক মানুষ এই আদর্শ এখনো বিশ্বা'স করেন যে কৃষি কাজটি কেমন নিরক্ষর এবং দরিদ্র মানুষের পেশা। কৃষকেরা জমিতে যে ঘাম ঝরিয়ে অক্লান্ত পরিশ্রম করে সেই কারণেই আমর'া বাড়ি প্লেটে রুটি খেতে পারি। তবে কৃষিকাজ নিরক্ষরদের পেশা এটা পুরোপুরি সত্য নয়। আজ দেশে এমন অনেকে আছেন যারা খুব শিক্ষিত হয়েও কৃষি কাজ করছেন।

কারণ তারা আধুনিক কৃষি ক্ষেত্রে সুবিধা গুলি সম্পর্কে ভালোভাবে অবগত তবে এটিই সত্য যে আজও দেশের বেশিরভাগ পুরাতন পদ্ধতিতে চাষ করছেন যা মাঝে মাঝে লাভের পরিবর্তে ক্ষ'তির চুক্তি হিসেবে প্রমাণিত হয়। তবে যারা আধুনিক কৃষি কাজ গ্রহণ করতে পেরেছে তারা অবশ্যই উপকৃত হয়েছেন। দেশের কৃষকরা দেশের অর্থনীতিতে একটি বড় ভূমিকা পালন করেন।

আসুন আমর'া আপনাকে আজ এমন একটি ছোট কৃষকের কথা বলছি জেন ইউটিউব দেখে কৃষিচিত্র পরিবর্তন করেছিলেন। একদিন তিনি ইউটিউবে স্ট্রবেরি ফার্মিং এর একটি ভিডিও দেখেছিলেন ভিডিও দেখে তিনি বুঝতে পেরেছিলেন যে কাজটি করেন তবে তার ভাল লাভ আয় হবে। এছাড়াও তার গ্রামের আবহাওয়া এবং মাটি ও স্ট্রবেরির পক্ষে অনুকূল এগুলো যেন তাকে স্ট্রবেরি চাষ করতে আরো উৎসাহিত করেছিল।

এটি একমাত্র কারণ যখন সে সবাইকে বলেছিলেন যে এখন তিনি ধান-গমের পরিবর্তে স্ট্রবেরি চাষ করবেন এই কথা শুনে অনেকে তাকে অনেক রকম মন্তব্য করে। তবে তিনি কারোর কথা শুনে থেমে যাননি‌।

তিনি হিমাচল প্রদেশ থেকে 2700 টাকায় 1000 গাছ অর্ডার করেছিলেন যা অ'স্ট্রেলিয়ান প্রজাতির ছিল। এই কাজে তার কাকা তাকে পুরোপুরি সমর'্থন করেছিলেন যিনি ভূ'ত ত্ত্বের একজন অধ্যাপক ছিলেন তার নাম শৈলেন্দ্র প্রিয়দর্শী।

তিনি তার খামারের মাটির দিকে তাকিয়ে বলেছিলেন যে এই মাটি ষ্ট্রবেরী চাষের জন্য উপযুক্ত। এতক্ষণ আমর'া যার কথা আপনাকে বলে চলেছি তার নাম একলব্য। তিনি ব্যাখ্যা করেছেন যে লকডাউন এর সময় তিনি এই সমস্ত কাজ করেছিলেন। ঘরে বসে তিনি অবসর সময় কা'টাতেন এবং ইউটিউব দেখতেন। এই ইউটিউবে তিনি একদিন স্ট্রবেরি ফার্মিং এর একটি ভিডিও দেখতে পান যা খুবই সহজ লেগেছিল তার।

তিনি দেখেছিলেন যে মাটিকে প্রথমে লাঙ্গল দিয়ে চোষে নেওয়ার পরে স্ট্রবেরী বপন করা হয়। আজও তার কথা মাথায় রেখে শেষ দেওয়া হয়। তারপর তিনি নিজে সেই পদ্ধতি অনুসরণ করেন এবং আজ স্ট্রবেরির ফল গুলি ও তাদের জমিতে আসতে শুরু করেছে। স্ট্রবেরি চাষে লাভ বেশি কারণ এটিতে ঝুঁকির সাথে ব্যয় ও কম। এজাতীয় পরিস্থিতিতে যদি এটি স্থানীয় বাজারে 'বিক্রি হয় তবে তার দাম প্রতি কেজি 50 থেকে 80 টাকা।

তবে বড় বাজারে 'বিক্রি হলে দাম বেড়ে 600 টাকায় পর্যন্ত যায়।আপনাকে বলে রাখি এখন অব্দি ফসল এখন প্রস্তুত তিনি এখন কাছের বাজার থেকে ক্রেতা খুঁজছেন। এছাড়া অনেক লোক তার সাথে যোগাযোগ শুরু করেছেন। এমন পরিস্থিতি তার পরিকল্পনা হলো তার ফসল 'বিক্রি হয়ে গেলে তিনি গাছের পরিমাণ আরও বাড়াবে এবং এই ধারণাটি তিনি তার পিতামাতার সাথে ভাগ করে নিয়েছিলেন। তার বাবা-মা ও একেবারেই আপ'ত্তি করেননি এই বিষয়ে।

তার বাবা রবিশ'ঙ্কর পরিবহনে কাজ করেন, তিনি মানুষের কথায় কান না দিয়ে তার ছেলের অর্থের প্রয়োজনীয়তা পূরণ করেছিলেন। আজকে তার পরিবার তাকে নিয়ে গর্ব করে যে এত অল্প বয়সেই তাদের সন্তান একটি নতুন চিন্তার দিক নির্দেশনা দিয়েছে।একলব্য বর্তমানে দশম শ্রেণীতে পড়াশোনার পাশাপাশি কৃষিকাজ করেন। সে কখনো পড়াশোনায় ফাঁ'কি দেয় না। তার পুরো পরিবার কৃষিকাজের সমস্ত কাজ পরিচালনা করে।একলব্য আজ 14 বছর বয়সে পুরো এলাকায় উদাহরণ হিসেবে আবির্ভূ'ত হয়েছেন।