অনন্ত জলিল পাগড়ি-জুব্বা পরতেন, ভেবেছিলাম ফিরে আসবেন

চিত্রনায়ক অনন্ত জলিল ইস’লামি পোশাক সমেত ধ’র্মীয় কাজে ফেরার পরে চলচ্চিত্র নির্মাণ করায় কঠোর সমালোচনা করেছেন মুফতি সালমান ফারসি নামের একজন ধ’র্মীয় বক্তা। তিনি অনন্ত জলিলের ১২০ কোটি টাকা দিয়ে সিনেমা বানানোর তীব্র নিন্দাও জানান। তার বক্তব্য সম্বলিত ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাই’রাল হয়েছে।

মুফতি সালমান ফারসি বলেন, ‘আমা'দের দেশের এক নায়ক। নাম অনন্ত জলিল। ১২০ কোটি টাকা দিয়ে সিনেমা তৈরি করতেছেন। বাংলাদেশে চলচ্চিত্র জগতে এতো টাকা দিয়ে চলচ্চিত্র তৈরি করতে পারে নাই।’

তিনি বলেন, অনন্ত জলিল সাহেবকে কিছুদিন আগে দেখেছিলাম দাড়ি, টুপি পাগড়ি দিতেন, জুব্বা পরে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। উনার একটা ছে’লে- তাকে মা'দরাসায় পড়াবেন এই ম’র্মে কথাবার্তা বলতেন। তাবলিগ করতেন। তার এই পরিবর্তন দেখে ভেবেছিলাম উনি ফিরে আসবে। ইস’লামের আরো বড় খেদমত করবেন। কিন্তু না উনি আবার চলচ্চিত্রে ফিরে গেছেন। ১২০ কোটি টাকা দিয়ে সিনেমা বানানোর দুঃসাহস এর আগে কেউ দেখায় নাই।

ভিডিওতে দেখা যায় সালমান ফারসি অনন্ত জলিলকে দেখে বলছেন, ‘অনন্ত জলিল আপনি অনেক সম্পদের মালিক। এই সম্পদ যদি মনে করেন নিজের ক্ষ'মতাবলে নিয়ে এসেছেন তাহলে ভুল ভাববেন। সম্পদের মালিক আল্লাহ। আল্লাহ আপনাকে এই সম্পদ দিয়েছে। আপনি জুব্বা পরতেন, মা’থায় পাগড়ি পরতেন উসামা হুজুরের সঙ্গে ঘুরে ঘুরে বিভিন্ন জায়গায় গিয়েছেন আম’রা দেখেছি।’

এই ধ’র্মীয় বক্তা বলেন, দেশে যখন সিনেমা হল বন্ধ হচ্ছে তখন উনি সিনেমা বানিয়ে দেশের সিনেমা হল চালু করতে যাচ্ছেন। একদিন উনি থাকবেন না। কিন্তু উনার করা খা’রাপ সিন (দৃশ্য) থাকবে। কবরে যখন যাব'ে তখন এই সিনেমা থেকে যাব'ে।

এই সিনেমা চলবে আর আজাব 'হতে থাকবে কবরে। শোনেন অনন্ত জলিল সাহেব একদিন আপনার যৌ'বন চলে যাব'ে, আপনার স্ত্রীর যৌ'বন চলে যাব'ে, আমা’র যৌ'বনও থাকবে না। এটা স্থায়ী হবে না। আপনার কাছে এই অনুরোধ ১২০ কোটি দিয়ে ছবি বানানো বন্ধ করুন।

এদিকে অনন্ত জলিল এই ছ'বিকে ১০০ কোটি টাকার ছবি হিসেবেই গণমাধ্যমকে বলেছেন। ই’রান ও বাংলাদেশের যৌ'থ আয়োজনের ‘দিন : দ্য ডে’ ট্রেলারে বেশ প্রশংসিতও হয়েছে। তবে মোশন পোস্টার প্রকাশ করে বেশ হাস্যরসের জন্ম দেয়া হয়েছে।

গেল বৃহস্পতিবার দুপুর ৩টা ১৭ মিনিটে নিজের ফেসবুক পেজে অনন্ত জলিল এই সিনেমা’র একটি মোশন পোস্টার শেয়ার করেছেন। সেখানে তিনি ক্যাপশন লিখেছেন, ‘দ্য বিগ বস ইজ ব্যাক।’

তবে এটি প্রকাশ্যে আসতেই সমালোচনার মুখে পড়ে। সোশ্যাল মিডিয়ায়শত শত মন্তব্যের মধ্যে প্রায় সবগু'লোতেই ছবিটিকে নিয়ে 'হতাশা ও হাসাহাসি প্রকাশ পেয়েছে। দুর্বল ও মানহীন ভিএফক্সের প্রতিই সবাই আঙুল তুলেছেন। এত বিগ বাজেটের সিনেমা’র এমন আনাড়ি ভিডিও দেখে কেউই যেন হ’জম করতে পারছেন না। অনেকেই এটিকে ‘আলিফ লায়লা’র ভিডিও বলে ব্যাঙ্গ করছেন।